আজ কবি গোলাম কিবরিয়া পিনু’র জন্মদিন

গোলাম কিবরিয়া পিনু , মূলত কবি। প্রবন্ধ, ছড়া ও অন্যান্য লেখাও লিখে থাকেন। গবেষণামূলক কাজেও যুক্ত। গোলাম কিবরিয়া পিনু-এর জন্ম ১৬ চৈত্র ১৩৬২ : ৩০মার্চ ১৯৫৬ গাইবান্ধায়। গাইবান্ধা শহরে মূলত শৈশব-কৈশোর কেটেছে। পড়েছেন গাইবান্ধা শহরের মধ্যপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে, এর পর মাধ্যমিক-গাইবান্ধা সরকারি উচ্চ বালক বিদ্যালয়ে, এর পর গাইবান্ধা সরকারি কলেজ হয়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়। প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষাগত যোগ্যতা : স্নাতক সম্মান (বাংলা ভাষা ও সাহিত্য) এবং স্নাতকোত্তর; পিএইচ.ডি. ।

১৯৮৩ থেকে ধারাবাহিকভাবে ঢাকায় বসবাস করেন। লিখছেন তিন দশকের অধিককাল। এর মধ্যে কবিতা-ছড়া-প্রবন্ধ ও গবেষণা মিলে ২৭টি গ্রন্থ বের হয়েছে–বাংলা একাডেমি, বাংলাদেশ শিশু একাডেমিসহ বিভিন্ন প্রকাশনী থেকে। কবিতা ছাপা হয়েছে অনেক। ছাপা হয়েছে সকল উল্লেখযোগ্য পত্রিকা-সাময়িকীতে এবং উল্লেখযোগ্য সম্পাদকের হাত দিয়েই। অনেক উল্লেখযোগ্য সংকলনেও তাঁর কবিতা গ্রহণ করা হয়েছে।

তিনি বহু ধরনের কবিতা লিখেছেন এবং সেগুলো বিভিন্ন নিরীক্ষাপ্রবণতায় সংশ্লিষ্ট। তাঁর কবিতায় জীবন আছে, সমাজ আছে, প্রকৃতি আছে, মানুষ আছে, দেশ-সময়কাল আছে এবং আছে প্রতীকের ব্যঞ্জনাও, আছে রূপক, আছে ছন্দের বিভিন্নমুখী ব্যবহার, অনুপ্রাসের নতুনমাত্রা, মিলবিন্যাসের নীরিক্ষা ও অন্যান্য সূক্ষ্ কারুকাজ। একেক কাব্যগ্রন্থ একেক বৈশিষ্ট্য নিয়ে উজ্জ্বল । বিশিষ্ট কবি, প্রাবন্ধিক, গবেষক ও ছান্দসিক উত্তম দাশ ‘স্বদেশ ও সময় চেতনা’র কবি বলে গোলাম কিবরিয়া পিনুকে চিহ্নিত করে আরও বলেছেন–‘`আশির দশকের আত্মমুখী কবিতার মধ্যে খুব সূক্ষভাবে কখনও কখনও কাজ করে যায় স্বদেশচেতনা। খুব সূক্ষভাবে বললাম একারণে যে, তাঁদের চেতনায় কণ্ঠস্বরের কোনো তীব্রতা থাকে না, নিজ দেশকাল সময়কে নিজের ভেতরে তাঁরা অনুভব করেন যে উদ্দীপনা যেখানে শ্লোগান নেই, গল্প নেই। মিথের একটা সূক্ষপুনর্বয়ন আছে। রূপক-প্রতীক আর রূপকল্পে এই কবিদের কবিচিত্ত ভিন্নতর ভাষা পায়। গোলাম কিবরিয়া পিনু এ ধারার বিশিষ্ট কবি।‘’–বিশ্ববাংলা কবিতা, উত্তম দাশ, মহাদিগন্ত, কলকাতা, ২০১৩, পৃষ্ঠা—১৪৩

কবিতার বই ছাড়াও তাঁর ছড়ার ক’টি বই আছে। আছে বাংলা নারীলেখকদের নিয়ে গবেষণা গ্রন্থ, যা বাংলা একাডেমি থেকে প্রকাশিত হয়েছে। এই গ্রন্থে নারীর আত্মপ্রতিষ্ঠা থেকে নারী লেখকদের সৃজনশীলতা ও বাংলা সাহিত্যে তাঁদের অবদান বিশেষভাবে এসেছে। নারী লেখকদের সাহিত্য-ভূমিকা, সৃজনশীলতা, জীবনচেতনা, আত্মপ্রতিষ্ঠার সংগ্রাম ও ভূমিকার বিবর্তন তাৎপর্যপূর্ণভাবে এই গ্রন্থে ধরা পড়েছে । এছাড়া অন্যান্য বিষয়ে প্রবন্ধের বইও রয়েছে।

শিশু-কিশোর সংগঠন খেলাঘর-সহ ছাত্র ও রাজনৈতিক সংগঠনের সাথে যুক্ত ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধেও তাঁর রয়েছে ভূমিকা। বর্তমানে বাংলা একাডেমির জীবনসদস্য ও এশিয়াটিক সোসাইটি অফ বাংলাদেশ-এর সদস্য। এখনো ক’টি সংগঠনের সাথে যুক্ত আছেন। জাতীয় কবিতা পরিষদের সাবেক সাধারণ সম্পাদক। বর্তমানে বাংলাদেশ প্রগতি লেখক সংঘের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। দেশ ও দেশের বাইরের বিভিন্ন সংগঠন থেকে পুরস্কার ও সম্মাননা পেয়েছেন। পেশাগত প্রশিক্ষণ ও অন্যান্য প্রয়োজনে ভারত, নেপাল, শ্রীলংকা, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, আমেরিকা, বলিভিয়া, নেদারল্যান্ডসসহ কয়েকটি দেশ ভ্রমণ করেছেন।

ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ পর্যন্ত একটি আর্ন্তজাতিক মিডিয়া বিষয়ক সংস্থা ‘ফ্রি প্রেস আনলিমিটেড’-এর সাথে যুক্ত হয়ে কাজ করেছেন। এর আগে এফপিএবিতে উপপরিচালক (এডভোকেসি), ফোকাল পয়েন্ট ও বিভাগীয় প্রধান হিসেবে কর্মরত ছিলেন। এছাড়া এফপিএবি থেকে প্রকাশিত মাসিক ‘সুখী পরিবার’-এর সম্পাদক হিসেবে ১৯৮৩ থেকে ২০১৪ পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। বিসিসিপি ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানেও যুক্ত ছিলেন। পেশাগতভাবে বিভিন্ন সময়ে সাংবাদিকতা, কলামলেখা, সম্পাদনা ও এডভোকেসি বিষয়ক কর্মকাণ্ডেও যুক্ত থেকেছেন।

প্রকাশিত গ্রন্থ
১. এখন সাইরেন বাজানোর সময় (কবিতা), ১৯৮৪
২. খাজনা দিলাম রক্তপাতে (ছড়া), ১৯৮৬
৩. সোনামুখ স্বাধীনতা (কবিতা), ১৯৮৯
৪. পোট্রেট কবিতা (কবিতা), ১৯৯০
৫. ঝুমঝুমি (ছড়া), ১৯৯৪
৬. সূর্য পুড়ে গেল (কবিতা), ১৯৯৫
৭. বাউরী বাতাস (প্রবন্ধ), ১৯৯৫
৮. কে কাকে পৌঁছে দেবে দিনাজপুরে (কবিতা), ১৯৯৭
৯. এক কান থেকে পাঁচকান (ছড়া), ১৯৯৮
১০. দৌলতননেছা খাতুন (প্রবন্ধ), ১৯৯৯
১১. আমরা জোংরাখোটা (কবিতা), ২০০১
১২. সুধাসমুদ্র (কবিতা), ২০০৮
১৩. আমি আমার পতাকাবাহী (কবিতা), ২০০৯
১৪. মুক্তিযুদ্ধের ছড়া ও কবিতা (ছড়া ও কবিতা), ২০১০
১৫. বাংলা কথাসাহিত্য : নির্বাচিত মুসলিম নারী লেখক ও অন্যান্য প্রসঙ্গ (গবেষণা), ২০১০
১৬. ও বৃষ্টিধারা ও বারিপাত (কবিতা), ২০১১
১৭. ফসিলফুয়েল হয়ে জ্বলি (কবিতা), ২০১১
১৮. মুক্তিযুদ্ধের কবিতা (কবিতা), ২০১২
১৯. ফুসলানো অন্ধকার (কবিতা), ২০১৪
২০. উদরপূর্তিতে নদীও মরে যাচ্ছে (কবিতা), ২০১৪
২১. নিরঙ্কুশ ভালোবাসা বলে কিছু নেই (কবিতা), ২০১৫
২২. ছুঁ মন্তর ছুঁ (ছড়া), ২০১৬
২৩. কবন্ধ পুতুল নাচে (কবিতা), ২০১৬
২৪. ঝুলনপূর্ণিমা থেকে নেমে এলো (কবিতা), ২০১৮
২৫. সমকালীন কবিতা ও বোধের দিগন্ত (প্রবন্ধ), ২০১৮
২৬. উনিশ-বিশ মতকের নারী লেখক ও আত্মশক্তির বিকাশ (প্রবন্ধ), ২০১৯
২৭. নির্বাচিত কবিতা (কবিতা),২০২১

সম্পাদনা
১.সাইয়িদ আতীকুল্লাহ-এর কবিতা সংগ্রহ (সংগ্রহ, সম্পাদনা ও ভূমিকা), প্রকাশক : সুবর্ণ, পৃষ্ঠা : ৫৪০, প্রকাশকাল : ফেব্রুয়ারি ২০১৮
২. এফপিএবি সুবর্ণ জয়ন্তী স্মারক গ্রন্থ
৩. বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন ষাট বছর পূর্তি স্মারকগ্রন্থ
বিভিন্ন সময়ে সূর্যকণা, মোহনা, বায়ান্নের রক্তঝরা পথ, তর্জন গর্জন, বুকের প্রদাহ, বিক্ষুব্ধ স্বদেশ নামক সাহিত্য সংকলন/পত্রিকা সম্পাদনা।

সম্মাননা/পুরস্কার :
• রংপুর তথ্য কেন্দ্র পুরস্কার (প্রবন্ধ, ১৯৭৪)
• বাংলাদেশ পরিষদ-রাজশাহী বিভাগীয় পুরস্কার (বক্তৃতা, ১৯৭৪)
• গাইবান্ধা কলেজ ছাত্র সংসদ পুরস্কার ( প্রবন্ধ, গল্প, কবিতা, ১৯৭৪)
• আমরা ক’জনা বিদ্রোহী সূর্যকণা পুরস্কার (১৯৭৫)
• গাইবান্ধা তথ্যকেন্দ্র পুরস্কার (প্রবন্ধ, ১৯৭৬ ও ১৯৭৭)
• জাতীয় শিল্প, সাহিত্য, সাংস্কৃতিক উৎসব-গাইবান্ধা পুরস্কার (কবিতা ও অন্যান্য ১৯৭৭)
• বিতর্ক অঙ্গন-রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় পুরস্কার (১৯৭৮)
• মাদার বখশ ছাত্রাবাস-রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় পুরস্কার (প্রবন্ধ,১৯৮১)
• বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন সম্মাননা-কবিতা, ১৯৮৫
• বাংলা কবিতা উৎসব সম্মাননা কোলকাতা, হলদিয়া, ভারত, ১৯৮৮
• ‘বাংলার মুখ’ সাহিত্য-সাংস্কৃতিক উৎসব সম্মাননা, বালুরঘাট, পশ্চিমবঙ্গ, ১৯৯৭
• সৌহার্দ্য’৭০ সম্মাননা, কোলকাতা, ২০০৩
• অনিরুদ্ধ’৮০ সম্মাননা, কোলকাতা, ২০০৩
• বিন্দুবিসর্গ সম্মাননা, ২০০৩
• দীপালোক বিজয় দিবস সম্মাননা পদক,কবিতা-২০০৬
• লোকসখা ওয়েলফেয়ার সোসাইটি, কোলকাতা কর্তৃক লোকসখা সম্মাননা ২০০৮
• উইমেন ডেলিভার আমেরিকা-এর ফেলোশিপ অর্জন ২০১০
• বন্ধু পরিষদ গাইবান্ধা সম্মাননা ২০১০
• এম নুরুল কাদের শিশুসাহিত্য পুরস্কার ২০১০
• বগুড়া লেখক চক্র সম্মাননা ২০১৬
• কবি বিষ্ণু দে পুরস্কার (ভারত) ২০১৬
• এবং মানুষ সম্মাননা ২০১৮
• চাড়ু–নীড়ম ইনস্টিটিউট পুরস্কার ২০১৯
• সাতক্ষীরা কবিতা পরিষদ পুরস্কার ২০১৯
গুণী এই লেখকের জন্মদিনে কাব্যশীলনের শুভেচ্ছা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *