নরসিংদীর আঞ্চলিক ভাষায় ছড়া মহসিন খোন্দকার

ছুডু ভাই ছুডু বইন

ভাইয়ের লাইগ্গা ছুডু বইনের দেহেন কিমুন টান!
চহের মাইঝে দিতে আইছে ভাত লবণ আর ছান
লগে আইছে ছুডু ভাইডা,গলাগলি কইরা
ভর্তা-ভাত আর লবণ আনছে থাল বাসুন ভইরা
বড় ভাইডা জালা ভাঙ্গে শিনিধিরের চহে
ইমুন পোলায় কাম করতাছে,বাফে খালি বহে
লাইজ্জের দূরা আইট্টা আইছে,ছুডু বইনডা কাইল
ভাই বইনে’অ ভাত খাইছেনা,ভাইজ্জা দিছিন চাইল
ছুডু বইনে আবদার করে,ভাইয়ে নি’ব ভার’দা
ঘরে গিয়া দুধ ভাত খাইব আম্মার লগে খার’দা
বড় ভাইডার কাইল লাগেনা,ভাই বইন কান্ধে লইয়া
বাড়ির এফি আইট্টা যাগা নানান কতা কইয়া
“শক্ত কইরা ধইরা রাহিছ,নাইলে কইলাম মরবি
আব্বায় আমি কাম-করতাছি,তরা খালি পড়বি”।।

যৌবন

“ইতা কী করছ বইতালনি কইলজাত নাই তর ডর
পোলাপানের নজর পরব বয়স অইছে তর”
“কী করুম’গো বুবু আমার মন’যে খালি বাওলা
আচড়াইন্না চুল অইয়া যা’গা কিমুন জানি আওলা”
“বুঝজি আমি ভালা কইরা কি’য়ে তরে ধরে
শামসু মিয়ার পুতে কেরে বাড়ির হাইছে ঘুরে”।

হরির কামের হরমাইশ

কইগেছত’গো বিলকিছ তুই’য়ে বাচ্চা থু কাহালের
ঘর বাড়ি সব হুইরা টুইরা ছালি তোল পাহালের
বাসি কয়ডা বাসুন আছে ভালা কইরা মরদিছ
মুরগিডা কই বইদা পারে ভালা কইরা ফরদিছ
জংলার মাইঝে পাতা আছে আনিছ তুই’য়ে হুইরা
পাতির মাইঝে বীজ ধান আছে,রাহিছ কইলাম ঘুইরা
ছাগলডারে বাইরে নিয়া পাতা দিবি,হাওরা
ইলায় জানি কইদা ঘুরে,মাওরার ঘরের মাওরা।।

গোছ লইয়া যাইতাম

যাইতাম কইছলাম মেরাতলি লইয়া কদ্দুর গোছ
আটতারিনা ঠ্যাঙ্গে লাগযে তালের ডাগ্গার পোছ
ছুডু ঝি’ডার তিন আবুইদ্দা দেকলে খুশি অইব
ঈদে চান্দে না গেলে’অ নানান কতা কইব
ঝি’য়ের জামাই দুহান চালা ভৈরবপুলের নিছে
জামাইডার’অ শইল ভালানা আতপাও খালি খিছে।।

Leave a Reply

Your email address will not be published.